চন্ড রাজার বলি || সঞ্জয় ভট্টাচার্য || Chand Razar Boli pdf & Review

চন্ড রাজার বলি || সঞ্জয় ভট্টাচার্য || Chand Razar Boli pdf & Review

গল্পের নাম - চন্ড রাজার বলি
লেখক - সঞ্জয় ভট্টাচার্য
প্রকাশক - দীপ প্রকাশন
ISBN - 978-81-952-375-8-6
প্রথম প্রকাশ - মে,২০২১

আমি বরাবরই একটু অফবিট বই ভালবাসি। হয়ত অনেকেই পড়েছেন বইটি, কিন্তু আমার চেনাজানার মধ্যে এই বইটির রিভিউ আমি পড়িনি।

যাইহোক এবার শুরু করি। শুরুতে বইয়ের নামটা পড়েই কিরকম একটা জঙ্গল জঙ্গল ভাব মনে আসলো।

গল্প শুরু হয় ২০১৩ সাল থেকে। মুখ্য চরিত্র "জয়ন্ত", তার জবানিতেই পুরো গল্পটা লেখা হয়েছে। তার এক বন্ধু তপন, যার সাথে জয়ন্তের বহুদিন দেখা সাক্ষাৎ হয়নি বলে, তার সাথে দেখা করতে যায়। তপনের বেশ কিছু কথা জয়ন্তের বেশ অদ্ভুত লাগে। এরপর তপন তার সাথে ঘটে যাওয়া উড়িষ্যা সীমান্তে ভগীরথপুরের অভিজ্ঞতার কথা বলতে শুরু করে। সে গল্পে আসে এক অনার্য দেবতা চন্ডরাজা, বাবুরামের টিলা আর চন্ডরাজার মন্দিরের নরবলি। এই চন্ডরাজাকে তুষ্ট করে নরবলি দিতে পারলে অতুল ঐশ্বর্য পাওয়া যায় নাকি। তপনের এই ঘৃণ্য চক্রান্তে জয়ন্ত ফেঁসে যায়। বলির মূহুর্তে সেখানে আবার এক দোর্দণ্ডপ্রতাপ নকশাল নেতা এসে হাজির হয়। তপনের বদলে এবার সে এই বলির প্রসাদ নিতে চায় কিন্তু এতকিছুর মাঝে এসে পড়ে পুলিশ। সবাই মারা যায় কিন্তু হৃৎপিণ্ডে গুলিবিদ্ধ হয়েও আশ্চর্যজনকভাবে বেঁচে যায় জয়ন্ত।

এই নিয়ে গল্পের প্রথম অংশ। দ্বিতীয় অংশে আরও অনেক চরিত্র আসে, যেমন- ইতিহাসবিদ রূদ্রপ্রসাদ, দিবাকর ইত্যাদি। কেউ জয়ন্তকে সঠিক পথে আবার কেউ বেঠিক পথে নিতে চায়। কলকাতার চারিদিকে সাদাজ্বর নামের এক মহামারী ছড়িয়ে পড়ে। দলে দলে ইঁদুর কলকাতার দিকে চলে আসে। রূদ্রপ্রসাদ মনে করেন যে জয়ন্তের আত্মবলিদানই হল এসবকিছু বন্ধ করার একমাত্র উপায়।


তপনের কী সেই অভিজ্ঞতা?
এই বলির সাথে উড়িষ্যার রাজপরিবারের কী সম্পর্ক?
তপন হঠাৎ জয়ন্তকে কেন সবকিছু বলছে?
জয়ন্ত কেন জড়িয়ে পরলো এই সবকিছুর সাথে? কী পরিচয় জয়ন্তের?
রূদ্রপ্রসাদ কে? তার এরকম মনে হওয়ার কী কারণ? জয়ন্তকে কেন‌ আত্মবলিদান দিতে হবে?

সব প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যাবে বইটি পড়লে। পড়ে ফেলুন ভালো লাগবে।

যদিও সব গল্পের মতই উপসংহারে দুষ্টের দমন আর শিষ্টের পালন হয়েছে। এছাড়াও বেশ দু একটা পৌরাণিক কল্পিত কাহিনী আর অন্ধকার জঙ্গল ঘোরা হয়েছে তপন আর জয়ন্তের সাথে।
 
বানান ভুল নজরে পরেছে কিন্তু। যেমন - সম্মন্দ, পক্রিয়া, দ্বায়িত্ব, ইত্যাদি। এরকম আরও আছে। অতি সাধারণ বানান যেহেতু, তাই দৃষ্টিকটু লাগছিলো।

প্রচ্ছদটি সাধারণ লেগেছে আমার। আরো ভালো হতে পারতো।

বইটিকে আমি রেটিং দেবো ৭/১০।

সমাপ্ত।

Post a Comment

0 Comments